Thursday 26 May 2022
- Advertisement -

Two Bengals, One Islamism

Join Sirf News on

and/or

[dropcap]T[/dropcap]he recent terrorist attack in a restaurant at the heart of the Bangladeshi capital poignantly proves that to start a Jihad you do not require the provocation of an anti-Islamic blog. It is enough to flag off Jihadi madness in the name of itself. It is important to note in this regard, that while the so-called Leftist and Islamic intellectuals will keep insisting that like so many other things, terrorism too has no religion, what they will conveniently gloss over is that globally, almost all terrorists adhere to one particular religion.

As per Islamic mandate there can be a for everything. There can be Islamic dress and even Islamic date fruits, as witnessed recently in Hyderabad! But the one thing that cannot have a religion is terrorism.

Bangladesh is an ideal case study of Islamic terrorism growing and thriving in the mainstream. Here, you cannot blame the imperialistic caprices of a capitalist country and its greed for oil. Nor can you blame the systematic exploitation of an ancient people by these capitalist countries. In Bangladesh, there can be only one raison d’etre behind terrorism, and that is Islamic aggression.

We are living in a collective state of denial. This time, one Bangladeshi official had initially stated the attack in Dhaka has been done by some misguided youth. Now if you cannot call a spade a spade then what follows as a natural consequence is a diabolical truth; that the recent attack in Dhaka is only the beginning of a new phase of terrorism. When East Pakistan was formed in 1947, Hindus formed 30% of the total population. At present, this has got drastically reduced to 9% (as per census 2011). Ironically, under the regime of the so-called secular Awami League the torture on the Hindus has crossed all limits. In today’s date, murder of Hindu priests, rape of Hindu woman, unlawful capturing of properties of Hindu are incidents that happen with alarming regularity in Bangladesh. In most of these cases, it is the grassroots leaders of the Awami League who have been at the forefront, only to be sheltered by their leaders and ministers later. All this has been justified directly or indirectly in the name of Islam.

The seeds of Islamic terrorism were sown in the country when Bangladesh removed the tenets of secularism in 1977 and declared itself an Islamic country in 1988, despite having suffered unspeakable horrors prior to and during the Liberation War of 1971 at the hands of Pakistan, another Islamic state. This way, they denied the rights of 25% Hindus at that time in Bangladesh. The next step was signing the memorandum with Osama Bin Laden by a Bangladeshi Maulavi. The world may have simply laughed at this at that point of time, but this is how terrorism has taken root in Bangladesh, slowly but surely, at its own pace. On one hand there was the military coup by General Ershad and on the other, the infamous Razakars being spared their lives due to the misplaced courtesy of Mujibur Rehman, the nation’s founding father, it all contributed to the downfall of secularism in Bangladesh. The Razakars systematically captured the education system through the Madrasas using the monetary help of Saudis, at the same time building a continued propagation of hate against the Hindus and other minorities of Bangladesh. As a result of this vicious two-pronged campaign, two or three generations post-1971 Bangladesh has became a radical Islamic state. To understand this radicalism one need not even visit Bangladesh. It can be felt living in India.

The present phase of Islamic aggression started with the blogger Abhijit Ray being hacked to death, followed by the murder of almost another two dozen bloggers. Since the global Islamic world doesn’t even recognize Bangladeshis as true Muslims, in order to prove their love and dedication for Islam they have now made it a habit of killing impoverished Hindu priests, Buddhist monks or even Christian shopkeepers. Even the Hindu tailors and barbers have had to die for the ‘crime’ of listening to Bhajans or doing Puja.

This is just one face of terror, the more violent one.

As part of the other less violent but equally vicious and lethal type, the Islamists humiliate the principal of a school by making him kneel down because of some false allegation of “disrespecting the Quran”. Again, some Hindu woman gets raped in public or a Hindu mother and daughter get gang raped midstream on a boat continuously for 5-6 hours. The second type of Jihad is mostly being carried out by the ‘secular’ Awami league leaders and not by BNP or Jamat leaders.

Bangladesh has become a complete radical state where people consider India, ‘the Hindu nation’, as their enemy. According to them, the Bangladeshi Hindus are loyal to ‘Hindu India’ and not to Islamic Bangladesh and hence, Hindus don’t have any right to live in Bangladesh. Another long-standing grudge is that though Hindus are only 9% in Bangladesh at present their land holdings still amount to almost 20% in the country. To capture these lands almost for free, it was essential, therefore, to form a Jihadist-political alliance to unleash systematic terror on the Hindus of Bangladesh. The hyphen connecting ‘Jihadist’ and ‘political’ is nothing but ‘Islam’, the common thread binding the two in an alliance. At present, the collective population of Hindus, Buddhist and Christians in Bangladesh is so less that no political party can consider them as a viable vote bank anymore. As a result, if any minor Hindu girl gets abducted and raped day after day nobody in the political circles is bothered by it. Actually, after being out of power for many years the Awami league came back to power mainly riding on the anti-BNP wave among the people. They now know quite well that their ‘secularism’, apart from getting them some brownie points from the UN and some plaudits globally, will not yield much tangible results when it comes to remaining in power on the domestic front. To stay in power they need to give stress to Islam, even if it means giving a free rein to the radical Islamist forces. The situation has now come to such dreaded levels that the girls of rural poor Hindu families have to stop going to school beyond Std. VIII, being constantly hounded by the youth from the majority community. The Hindus families especially from the rural and economically backward sections don’t have a minimum level of security. The Indian mainstream media discusses the terror attack in Dhaka for two days, but never focuses on the news of constant terror being suffered by the rural poor Hindu families in Bangladesh. They would rather look for another Dadri in order to suppress these incidents and the politically correct ‘intellectual brigade’ of West Bengal would try to cover up killing of Hindus in Bangladesh by citing ‘personal rivalry’.

In recent times, a minor girl named Shilpi Rani Das from Netrakona district of Bangladesh was abducted by her school teacher, after which the guy continued to rape her for two months continuously, all the while forcing the girl to get converted into Islam. The police in Bangladesh has not put in minimum effort to rescue the girl. Similarly, in another incident in Kulawara sub-district another 16-year-old girl Shyamali De, met the same fate of Shilpi Rani Das. Almost on a daily basis, Hindu girls are getting abducted, raped and being converted forcefully. Or they are being forced to take refuge in India, with the administration remaining just a mute spectator.

Now the question arises, if this is the situation in Bangladesh, what is the situation across the border? Isn’t West Bengal facing the same danger? The present-day jihadi activity in Bangladesh is the cumulative result of the last 40 years of efforts by the Islamic organizations. In West Bengal they have been operating for the last 30 yrs, so the difference is merely that of 10 years. Whatever happened in Kaliachak of Malda under the garb of common criminal activity is bound to occur openly as Islamic aggression very soon.

The ever-decreasing population of Hindus in Bangladesh made all the parties to centre their political agenda on Islam. The other side of the coin is that on this side of the border, the increasing population of Muslims, coupled with the perpetual appeasement politics by the CPIM and then the TMC, is increasing the danger day by day. Since the minorities in India present an undivided vote bank for political parties, it is the constant endeavour of the latter to compete in their policies of appeasement in order to secure the minority vote bank. Under the CPIM-led Communist government, illegal Madrasas flourished all over West Bengal. The same policy is being continued in the TMC regime too, with special universities for minorities and special stipend amounts for minority students. Given that Buddhadeb Bhattacharjee, the ex-CM of the state and a lifelong Communist, too was compelled to once state that the illegal madrasas are safe havens of terrorism, it is anybody’s guess what threat they actually pose to the internal security of India. The Khagragarh incident made us realise how fearfully true this statement was. The NIA investigation actually showed that there are many madrasas in Malda, Murshidabad, Birbhum, Nadia and Burdwan are involved in terrorist activities.

Mehdi Masroor Biswas, the 25-year-old electrical engineer from West Bengal who was operating Twitter handle @shamiwitness based in Bengaluru
Mehdi Masroor Biswas, the 25-year-old electrical engineer from West Bengal who was operating Twitter handle @shamiwitness based in Bengaluru

At present West Bengal is witnessing a silent, unarmed Jihad, too, and its implementation in different phases. cultivation is not a problem peculiar to Malda. There are many districts in West Bengal where opium is being widely cultivated with a huge amount from this opium trade being used to establish and perpetrate the terror network through West Bengal in all of India. Due to the inaction of the administration over the last 30 years coupled with the active shelter given by political leaders cutting across party lines, West Bengal has now become a safe haven for Islamic terrorists. In the last few years there has been a Bengal link in almost all terror activities in India. But the administration has not taken any appropriate steps against the terror networks operating in from the state.

From Samudragarh in Burdwan to Chandrakona Road in West Midnapur, from Deganga in North 24 Parganas to Mandir Bazar in South 24 Parganas, the rise of this silent terrorism has been witnessed in diverse places. This silent terrorism reached new heights in Dakhindari of Kolkata, where the police force virtually lost all control of the area for several hours.  With continuous infiltration from Bangladesh, such incidents are occurring with alarming regularity in West Bengal.

In some cases, they have striking similarities with the incidents of Islamic aggression in Bangladesh. In Samudragarh, a fight between a shopkeeper and a customer was enough for an organized attack by Muslims on Hindus. In Mandir Bazar, the reason was Bhajan played in a temple in the month of Ramadan. In Chandrakona, the reason for organized attack on Hindus was a fight between a rickshaw driver and a passenger. All these incidents followed the pattern of silently growing jihad of Bangladesh in which first, there is an increasing and consolidation of political power in a particular place and then using that influence to render the administration inactive while organizing attacks on Hindus. In districts like Malda or Murshidabad where Hindus are a minority, Hindu families have even being stopped from doing their daily rituals. Somewhere, Hindus are being heckled for putting rangoli in their house. Somewhere, Hindus are being forced to stop organizing Durga puja since Islam doesn’t accept any form of idol worship. In all these places the political leaders are pursuing vote bank politics and looking the other way for temporary electoral gains.

Another significant point in this regard is that the terror organization Jamatul Muzahidin Bangladesh recently changed their name into Jamatul Muzahidin Bangla. As the NIA investigation of the Khagragarh incident discovered, the aim of this organization is to establish a Greater Bengal, an Islamic country to be ruled by Sharia.

While the country’s intelligence and defence mechanisms remain busy in focusing on the security of the Western borders of India, it is this silent jihad in the Eastern part that people of Bengal are being oblivious to. Whereas in Punjab there is laser technology to stop infiltration and strengthen the border security, in West Bengal we are having merely a knee-high barbed wire fence on the border with Bangladesh. Even that is missing at certain sections. Our defence authorities tend to believe that every time an attack will happen only through the North West. In their concentration on the Western front, they are fully ignoring the fact that the jihadi organizations have already made a strong base in the eastern part of India.

There is still time to save West Bengal from becoming another Kashmir. Else, the Hindus of West Bengal will face the same fate as their brethren of East Bengal in 1947. It was the sheer effort of the visionary leader Shyama Prasad Mukherjee that Bengali Hindus had got their own piece of land. But unless there is an immediate and proper response to the existing Islamic aggression the Bengali Hindu is bound to become a a second time. If we hesitate or delay, the time is not far away when the Bengali Hindus of West Bengal will be bracketed with the Kashmiri Hindus.

The people of Bengal need to decide their priority: whether to stick to petty political correctness or to stand up for the heritage and culture of Bengal and her true pluralistic and secular characteristic, and to rise above small, temporary political interests and form a strong social and political movement to defeat the conspiracy to form an Islamic Banglastan. The Hindus of West Bengal need to decide what type of Bengal they want leave as legacy for their generations.


Bangladesh_US_Writer_Killedবাংলাদেশের ঢাকায় রেস্তোরাতে জেহাদী হানা অবশেষে প্রমাণ করল যে জেহাদের সূচনার জন্য কোন ব্লগারের ইসলাম বিরোধী ব্লগ লাগেনা,জেহাদের জন্য ধর্মের উন্মাদনাই যথেষ্ট। যদিও তথাকথিত বাম ও ইসলামিক বুদ্ধীজীবিরা দাবি করবেন যে অন্যান্য অনেক কিছুর ন্যায় সন্ত্রাসের কোন ধর্ম হয়না। যদিও এটা আলাদা বিষয় যে সন্ত্রাসবাদীরা একটি নির্দিষ্ট ধর্মের অনুসরণকারী। এই পৃথিবীতে পোশাকের ধর্ম আছে,এমনকি অতিসম্প্রতি হায়দরাবাদে দেখলাম খেজুরেরও ধর্ম আছে কিন্তু সন্ত্রাসের কোন ধর্ম নেই! প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশ একটি আদর্শ উদাহরণ ইসলামিক সন্ত্রাসের। যেখানে জেহাদের কারণ হিসাবে সাম্রাজ্যবাদী শক্তির তেলের ধান্দাকে দায়ী করা যায়না বা আদিম জনগোষ্ঠীর উপরে হওয়া সাম্রাজ্যবাদী শক্তির অত্যাচারকে দায়ী করা যায়না। যেখানে জেহাদের এক এবং একমাত্র ভিত্তি ইসলাম এবং ইসলামিক আগ্রাসন।

বাংলাদেশের ঢাকায় সন্ত্রাসী হানা প্রসঙ্গে এক অধিকর্তা জানান যে কিছু বিপথগামী যুবক এর জন্য দায়ী। এখন আপনি যদি অপ্রিয় সত্য কথা বলার সাহস না দেখাতে পারেন উপরন্তু তাকে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালাতে যান তাহলে বলব ঢাকার গুলশানে রেস্তোরায় আক্রমণ শুধুমাত্র সূচনা, বিস্তারিত উপন্যাসের জন্য তৈরি থাকুন। ১৯৪৭ সালে যখন পূর্ব পাকিস্তান জন্ম নেয় তখন সেখানে হিন্দুরা ছিলেন সমগ্র জনজাতির প্রায় ৩০ শতাংশ। বর্তমানে বাংলাদেশে হিন্দুদের সংখ্যা নেমে এসেছে ৯ শতাংশে। তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষ দল আওয়ামী লিগের শাসনকালে হিন্দুদের ওপর অত্যাচার হয়েছে মাত্রাছাড়া। বাংলাদেশে বর্তমানে হিন্দু পুরোহিত খুন, হিন্দু নারীর ধর্ষণ, হিন্দু সম্পত্তি জবরদখল নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। এই সব ঘটনায় অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নেতৃত্ব দিয়েছেন আওয়ামী লীগের নিচু তলার নেতা কর্মীরা এবং তাদের রক্ষা করেছেন তাদের ওপরতলার নেতা মন্ত্রীরা।

বাংলাদেশের ইসলামিক সন্ত্রাস কিন্তু তার বীজ বপন করেছিল সেই মুহূর্তে যখন বাংলাদেশ নিজেরা একটি ইসলামিক রাষ্ট্র পাকিস্তানের হাতে অত্যাচার জর্জরিত হয়েও ২৫ শতাংশ হিন্দুর দেশ নিজেরাও একটি ইসলামিক রাষ্ট্র হিসাবে জন্মগ্রহণ করে — যার পরবর্তী পদক্ষেপ ছিল যখন লাদেন সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করেন সেই দাবী সনদে বাংলাদেশের মৌলবির স্বাক্ষর। পৃথিবী হয়ত তখন একে ছেঁড়া কাথায় শুয়ে লাখ টাকার স্বপ্ন ভেবে হেসে উড়িয়ে দিয়েছিল কিন্তু বাংলাদেশে সন্ত্রাস এগিয়েছে তার নিজস্ব গতিতেই। একদিকে জেনারেল এরশাদের নেতৃত্বে সামরিক অভ্যুত্থান আর অপরদিকে বাংলাদেশের জাতির জনক মুজিবুর রহমানের কৃপায় জীবন প্রাপ্ত রাজাকার ও জামাত নেতারা। এই জামাত নেতাদের উদ্যোগে এবং সৌদি সহ অন্যান্য ইসলামিক দেশের সহায়তায় একদিকে মাদ্রাসা ভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থার রমরমা হয়েছে এবং অপরদিকে ক্রমাগত হিন্দু বিরোধী প্রচার চলেছে। যার ফলশ্রুতিতে আজ দুই তিন প্রজন্ম পরে বাংলাদেশ একটি উগ্র ইসলামিক রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। এই উগ্রতা যে কি পরিমাণ বেড়েছে তা জানার জন্য বাংলাদেশ যাওয়ার কোন দরকার পরেনা, ভারতে বসেই তা টের পাওয়া যায়।

বাংলাদেশের অধুনা ইসলামিক আগ্রাসন শুরু হয় ব্লগার অভিজিৎ রায়ের হত্যার মাধ্যমে এবং পরবর্তীতে প্রায় দুই ডজন নাস্তিক ব্লগারের গলা নামিয়ে বাংলাদেশ জেহাদ মানচিত্রে তার উপস্থিতি জানান দেয়। এবং যেহেতু আরব দুনিয়া তাদের ততটা খাঁটি মুসলিম বলে মনে করেনা তাই তাদের ইসলাম প্রীতির নিদর্শন দিতে তারা শুধুমাত্র ব্লগারদের উচিত শিক্ষা দিয়েই থেমে থাকেনা, একের পর এক দরিদ্র হিন্দু পুরোহিত, বৌদ্ধ ভিক্ষুক কিংবা সাধারণ খৃষ্টান দোকানদারেরও গলা নামাতে থাকে। এমনকি হিন্দু নাপিত কিংবা কীর্তন শোনার অপরাধে দরিদ্র হিন্দু দর্জিরও গলা নামাতে থাকে। এতো গেল সন্ত্রাসের সশত্র রূপ। এর সাথেই আছে সন্ত্রাসের একটি নিরস্ত্র রূপ।

যেখানে মিথ্যা অভিযোগে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে কান ধরে উঠবোস করতে হয়, কিংবা সন্তানসম্ভবা হিন্দু নারী জনসমক্ষে ধর্ষিতা হন। কিংবা হিন্দু মা মেয়েকে মাঝ নদীতে লাগাতার পাঁচ ছয় ঘণ্টা ধরে ধর্ষণ চলতে থাকে। এই যে নিরস্ত্র জেহাদ এর নেতৃত্বে কিন্তু বিনপি বা জামাত নেতারা নেই, এর নেতৃত্বে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আছেন আওয়ামী লীগের ‘সেকুলার’ নেতারা।

বাংলাদেশ বর্তমানে একটি সম্পূর্ণ জেহাদী রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে, যাদের চোখে ভারত একটি হিন্দু রাষ্ট্র, সে যতই আমদের ‘সেকুলার’ ব্রিগেড গাজায় ইজরায়েলি অত্যচারের প্রতিবাদে মিছিল করুন না কেন, এবং বাংলাদেশে থাকা হিন্দুরা এই ভারত নামক হিন্দু রাষ্ট্রের প্রতি বিশেষ অনুরক্ত, তাই তাদের বাংলাদেশে মান ইজ্জত নিয়ে বাচার কোন অধিকার নেই। এছাড়া যদিও হিন্দুরা বাংলাদেশে মাত্র ৯ শতাংশ, তবুও এখনও তাদের হাতে থাকা জমির পরিমাণ প্রায় ২০ শতাংশ। এখন এই জমি প্রায় বিনামূল্যে হস্তগত করার সহজ উপায় হল একটি রাজনৈতিক-জেহাদী জোট গঠন করে হিন্দুদের ওপরে পরিকল্পিত হামলা চালান। পাঠকবর্গকে অনুরোধ করব এখানে রাজনৈতিক ও জেহাদ শব্দ দুটির মধ্যে থাকা হাইফেনটি লক্ষ্য করতে। এই হাইফেনটি হল ইসলাম। যা কিনা এই দুই শক্তিকে একত্রিত হতে সহায়তা করেছে।

বর্তমানে বাংলাদেশে হিন্দু, বৌদ্ধ বা অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষের সংখ্যা এতই নগন্য যে এরা কোন রাজনৈতিক দলের ধর্তব্যের মধ্যেই আসেনা। আর কোন হিন্দু পরিবারের নাবালিকা কন্যাকে কে জোর করে তুলে নিয়ে গিয়ে গনিমতের মাল হিসাবে ভোগ করল তাতে কার কি যায় আসে!

আসলে দীর্ঘকাল ক্ষমতার বৃত্তের বাইরে থাকার পর আওয়ামী লীগ অনেক চেষ্টায় এবং বাংলাদেশের মানুষের তৎকালীন সরকারের প্রতি বিরক্তির জন্য ক্ষমতা ফিরে পায়। এখন তারা জানে এই ক্ষমতা ধরে রাখতে তাদের ‘সেকুলার’ চরিত্র কোন কাজে আসবেনা। কারণ সেকুলার ভাবমূর্তি হয়ত তাদের বহির্বিশ্ব হতে মাঝে মাঝে কিছু বাহবা জোটাবে কিন্তু তা তাদের সরকারে টিকিয়ে রাখবেনা। সরকারে টিকে থাকতে গেলে তাদের ইসলামের সহয়তা করতে হবে এবং তা করতে হলে এই তথাকথিত ধর্মহীন জিহাদকে প্রশ্রয় দিতে হবে।

অবস্থা এখন এমন দাঁড়িয়েছে যে দরিদ্র হিন্দু পরিবারের মেয়েরা ক্লাস সেভেন এইটের পরে তাদের পড়াশুনা ছাড়তে বাধ্য হচ্ছে — কারণ সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের যুবকদের নেকনজর। বর্তমানে বাংলাদেশের হিন্দু পরিবারগুলির বিশেষ করে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে থাকা পরিবারগুলির নুন্যতম নিরাপত্তাও নেই। ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমগুলি এখন দিন দুই ঢাকার সন্ত্রাসবাদী অনেক অলোচনা করে সব আলো টুকু শুষে নিয়ে শুধুমাত্র চোনাটুকু ফেলে রাখবে আমার আপনার জন্য, কিন্তু প্রতিদিন যে একের পর এক দরিদ্র পুরোহিত কিংবা দর্জি বা দোকানদারের গলা কাটা হচ্ছে তা নিয়ে নৈশব্দ বজায় রাখবে এবং আরেকটি দাদরির খোঁজ করবে।

শিল্পী রানি দাস নামক বাংলাদেশের নেত্রকোনা জেলার এক হিন্দু নাবালিকাকে তার স্কুলের শিক্ষক অপহরণ করে, বলপূর্বক ইসলাম ধর্ম গ্রহণে বাধ্য করে এবং তারপরে ২ মাস যাবত প্রতিনিয়ত ধর্ষণ করলেও বাংলাদেশের পুলিশ এই বালিকাকে উদ্ধার করার নুন্যতম প্রচেষ্টাও করেনি। একই ভাবে আরেকটি ঘটনায় কুলাওড়া উপজিলার শ্যামলী রানি দে নামক ১৬ বৎসর বয়সী এক বালিকাকে অপহরণ ও তারপরে বলপ্রয়োগদ্বারা ইসলাম ধর্ম গ্রহণে বাধ্য করা হয় এবং তার পরিণতিও শিল্পী রানি দাসের মতই হয়। এইরকম ভাবে নিরস্ত্র সন্ত্রাসের মাধ্যম হিসাবে প্রতিনিয়ত একের পর এক হিন্দু নারী বাংলাদেশে ধর্ষিতা হচ্ছেন, খুন হচ্ছেন কিংবা সম্ভ্রম বাঁচাতে ভারতে পালিয়ে আসতে বাধ্য হচ্ছেন।

Mehdi Masroor Biswas, the 25-year-old electrical engineer from West Bengal who was operating Twitter handle @shamiwitness based in Bengaluru
Durgapur polytechnic student Ashique Ahmed, an IS operative, indoctrinated youth in Murshidabad, Malda, Hooghly and North 24-Parganas

বাংলাদেশে যখন এই অবস্থা, তার পড়শি পশ্চিমবঙ্গে কি এর আঁচ পরছেনা? অবশ্যই পরছে। বাংলাদেশের এই জেহাদ বিগত ৪০ বছরের জেহাদী প্রচেষ্টার ফল। পশ্চিমবঙ্গে তা ৩০ বছরে পদার্পণ করেছে। আর ১০টি বছর অপেক্ষা করুন; এখন যা মালদার কালিয়াচক বা অন্যান্য জায়গায় দুষ্কৃতী হামলার ছদ্মবেশে হচ্ছে কাল তা জেহাদের নামেই হবে।

বাংলাদেশে যেমন হিন্দুদের ক্রমহ্রাসমান উপস্থিতি সেখানকার রাজনীতিকে ইসলাম ভিত্তিক রাজনীতিতে পরিণত করেছে, একই ভাবে পশ্চিমবঙ্গে মুসলিমদের ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা রাজনৈতিক দলগুলিকে সংখ্যালঘু তোষণকারীতে পরিণত করেছেন। যেহেতু সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ভোট বরাবরই অবিভক্ত তাই বাম্ফ্রন্ট বা তৃণমূল সবার নজর থাকে এই ভোট ব্যাঙ্কের দিকে। সেই কারণেই বাম আমলে যেমন মাদ্রাসা শিক্ষার প্রসার ঘটেছে, তেমনি তৃণমূল আমলে সংখ্যালঘুদের জন্য বিশেষ বিশ্ববিদ্যালয় বা অনুমোদিত এবং অননুমোদিত মাদ্রাসা শিক্ষার প্রসার একই হারে হয়ে চলেছে। এমনকি এই অননুমোদিত মাদ্রাসাগুলি এখন ভারতবর্ষের নিরাপত্তার প্রশ্নে এতটাই বিপজ্জনক আকার ধারণ করেছে যে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্জও একসময় বলতে বাধ্য হয়েছিলেন যে মাদ্রাসাগুলি আদতে সন্ত্রাসবাদীদের আঁতুড়ঘর। এই কথাটি যে কতটা সত্য তার প্রমাণ আমরা পেয়েছি খাগড়াগড় বিস্ফোরণ এবং তার পরবর্তী তদন্তে যেখানে মালদা, মুর্শিদাবাদ বা নদীয়ার মাদ্রাসাগুলিতে একের পর এক জেহাদী কার্যকলাপের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গেও চলছে নিরস্ত্র জেহাদের পরিকল্পনা এবং তার ধাপে ধাপে প্রয়োগ। মালদার কালিয়াচকের ঘটনা এর একটি পর্যায়। আফিম চাষ শুধুমাত্র মালদাতেই সীমাবদ্ধ নেই পশ্চিমবঙ্গের আরও অনেক জেলাতেই এই চাষ ছড়িয়ে পড়েছে এবং এই আফিম বানিজ্যের একটা মোটা টাকা ব্যবহৃত হচ্ছে এই জেহাদী জাল পশ্চিমবাংলা জুড়ে ছড়িয়ে দিতে। বিগত ৩০ বছর ধরে বাম ও তৃণমূল জমানা নির্বিশেষে প্রশাসনের অকর্মণ্যতায় এবং রাজনৈতিক নেতৃত্বের সক্রিয় প্রশ্রয়ে পশ্চিমবাংলা ইতিমধ্যেই জেহাদীদের একটি নিরাপদ বাসস্থানে পরিণত হয়েছে। বিগত কয়েক বছরে দিল্লী, পুণে সহ ভারতবর্ষের যেকোন প্রান্তেই সন্ত্রাসবাদী হানার তদন্তে বারেবারে পশ্চিমবঙ্গের এই জেহাদ যোগের প্রমাণ পাওয়া গেছে; তারপরেও সরকার কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

এই নিরস্ত্র জেহাদের প্রয়োগ কখনও দেখা গেছে বর্ধমান জেলার সমুদ্রগড়ে, কখনও পশ্চিম মেদিনীপুরের চন্দ্রকোনায় আবার কখনও দক্ষিন চব্বিশ পরগনার মন্দির বাজারে বা উত্তর চব্বিশ পরগনার দেগঙ্গায় কিংবা কখনও একেবারে কলকাতার উপকণ্ঠে দখিনদাঁড়িতে।

প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ থেকে যত অনুপ্রবেশ বাড়ছে এইধরনের ঘটনাও তত বাড়ছে এবং পন্থাতেও বাংলাদেশের সাথে প্রভুত মিল পাওয়া যায়।

সমুদ্রগড়ে দোকানদার এবং খদ্দেরের ঝগড়াই যথেষ্ট কারণ হিন্দুদের উপরে সঙ্ঘবদ্ধ সাম্প্রদায়িক আক্রমণের। আবার মন্দিরবাজারে এই আক্রমণের কারণ রমজান মাসে মন্দিরবাজারে মাইক বাজানো দিয়ে। চন্দ্রকোনায় আবার তার কারণ রিকশাওলা ও যাত্রীর মধ্যে ভাড়া নিয়ে বচসা। প্রতিক্ষেত্রেই কিন্তু বাংলাদেশের নিরস্ত্র জেহাদের অনুকরণ করা হচ্ছে। অর্থাৎ প্রথমে সেই অঞ্চলে নিজেদের রাজনৈতিক শক্তির বৃদ্ধি ঘটানো এবং পরে সেই রাজনৈতিক শক্তিকে ব্যবহার করে হিন্দুদের ওপরে সাম্প্রদায়িক আক্রমণের সময় প্রশাসনকে অকেজো করে রাখা। ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গের যে জেলাগুলিতে হিন্দুরা সংখ্যালঘিস্ট হয়ে পড়েছে — যেমন মালদা কিংবা মুর্শিদাবাদ — সেখানকার গ্রামাঞ্চলে হিন্দু পরিবারগুলিকে তাদের নিত্যনৈমত্তিক আচার আচরণ পালনেও বাধা দেওয়া হচ্ছে। কোথাও হিন্দুরা বাড়িতে আলপনা দিলে তাদেরকে হুমকি শুনতে হচ্ছে আবার কোথাও বা দুর্গা পুজো — যা শুধুমাত্র হিন্দুদের ধর্মাচরণ নয় পশ্চিম বাংলার ঐতিহ্য — তাতেও বাধাদান করা হচ্ছে যেহেতু তা ইসলামের মতের অনুসারী নয়। এইসব জায়গাতেই ক্ষমতাশীল রাজনৈতিক দলের নেতারা তাদের ক্ষুদ্র রাজনৈতিক স্বার্থে এসব দেখেও দেখছেননা।

এইভাবেই প্রতিনিয়ত জেহাদী কার্যকলাপ একটু একটু করে তার শিকড় ছড়াচ্ছে পশ্চিম বাংলার মাটিতে আর প্রশাসন রাজনৈতিক স্বার্থে চোখ বন্ধ করে থাকছে। এ প্রসঙ্গে আরেকটি বিষয় উল্লেখযোগ্য। বাংলাদেশের প্রধান জেহাদী সংগঠন যার আগে নাম ছিল জামাতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ তা এখন জামাতুল মুজাহিদিন বাংলা নামে পরিচালিত হচ্ছে এবং খাগড়াগড় পরবর্তী তদন্তে উঠে আসা তথ্যে দেখা যাচ্ছে যে এই জেহাদী সংগঠনের মুল লক্ষ্য গ্রেটার বাংলা বা বৃহত্তর বাংলাদেশ নামক ইসলামিক রাষ্ট্রের স্থাপনা।

অথচ আমাদের দেশের বিভিন্ন গোয়েন্দা ও নিরাপত্তা সংস্থা এখনও দেশের পশ্চিম প্রান্তের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে নিশ্ছিদ্র করতে ব্যস্ত। পশ্চিম বাংলা ও বাংলাদেশের সীমানা সুরক্ষিত করার কোন উদ্যোগই চোখে পরছেনা। পাঞ্জাবে যেখানে সীমান্ত নিরাপত্তা নিশ্ছিদ্র করতে লেসার আলোকরশ্মির ব্যবহার করা হচ্ছে, পশ্চিম বাংলা ও বাংলাদেশের সীমান্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা বলতে কোথাও হাঁটু সমান উচু কাঁটাতার, কোথাও বা তাও নেই। আমাদের দেশের নিরাপত্তা আধিকারিকদের হয়ত ধারণা বরাবরের মতো এখনও আক্রমণ দেশের পশ্চিম প্রান্ত দিয়েই হবে। এদিকে যে পূর্ব প্রান্ত দিয়ে ঢুকে জেহাদী শক্তি দেশের মধ্যেই বিভিন্ন জায়গায় তাদের দুর্গ গড়ে তুলছে সে নিয়ে তাদের হুঁশ নেই।

এখনও সময় আছে আমরা পশ্চিম বাংলাকে আরেকটা কাশ্মির হওয়া থেকে আটকাতে পারি, নাহলে বাঙ্গালী হিন্দুরা একবার ১৯৪৭ সালে উদবাস্তু হয়েছে। সেই সময়ে মহান জননেতা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের একক প্রচেষ্টায় পশ্চিমবঙ্গ নামক যে ভূখণ্ডটি পেয়েছিল তাদের অধিকারে তা আবার খোয়াবে এবং পুনরায় উদবাস্তু হবে। এখন বাংলার মানুষকেই ভাবতে হবে তারা তাদের রাজনৈতিক সীমাবদ্ধতাকে প্রাধান্য দেবে না তাদের আত্মপরিচয়কে। তারা তাদের উদার সমাজনীতি, ধর্মাচরণকে রক্ষা করবে নাকি অপ্রিয় সত্য না বলতে পেরে বাংলাদেশের ব্লগারদের অনুসরণ করবে।

যদি পশ্চিমবাংলাকে বাংলাদেশ না হতে দিতে চান তাহলে বাংলার মানুষকেই একজোট হতে হবে এবং রাজনৈতিক দল ও কেন্দ্রীয় সরকারকে বাধ্য করতে হবে পশ্চিমবাংলার হিন্দুদের স্বার্থরক্ষায়। এখনও যদি আমরা সিদ্ধান্ত নিতে বিলম্ব করি তাহলে অচিরেই আমরাও কাশ্মীরি হিন্দুদের সাথে একাসনে বসব এবং আবার ভিক্ষার পাত্র নিয়ে বেরব। পশ্চিম বাংলার মানুষকেই ঠিক করতে হবে যে তারা বালিতে মুখ গুঁজে থেকে নিজেদের নিরাপদ ভাববেন নাকি তারা দলীয় রাজনীতির উপরে উঠে জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলে ক্ষুদ্র রাজনৈতিক স্বার্থে চলা আঞ্চলিক রাজনীতিকে আস্তাকুড়ে পাঠাবেন এবং পশ্চিম বাংলার নিরাপত্তা সুরক্ষিত করবেন ও বাংলাস্তান তৈরির এই চক্রান্তকে ছুঁড়ে ফেলবেন।

বিঃদ্রঃ: পশ্চিমবঙ্গের সুশীল সমাজ বাংলাদেশের পুরোহিত হত্যাকে ব্যক্তিগত শত্রুতা বলে চালাতে চাইছেন, কিন্তু তাদের জ্ঞাতার্থে জানিয়ে রাখি এই প্রতিটি ক্ষেত্রেই আইসিস নামক একটি জেহাদী সংগঠন দায় স্বীকার করেছে আর হঠাৎ করে বাংলাদেশের পুরোহিতদের সাথে সেখানকার সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের কেন ব্যক্তিগত শত্রুতা হচ্ছে এর ব্যাখ্যাটা তারা যেন ভালো করে ভেবে রাখেন, অন্যথায় আজ যে সমাজের কাছে সুশীল সাজার জন্য তারা এই ভনিতা করছেন ভবিষ্যতে হয়ত সেই সমাজই তাদের ত্যাগ করবে।

Contribute to our cause

Contribute to the nation's cause

Sirf News needs to recruit journalists in large numbers to increase the volume of its reports and articles to at least 100 a day, which will make us mainstream, which is necessary to challenge the anti-India discourse by established media houses. Besides there are monthly liabilities like the subscription fees of news agencies, the cost of a dedicated server, office maintenance, marketing expenses, etc. Donation is our only source of income. Please serve the cause of the nation by donating generously.

Join Sirf News on

and/or

Diptasya Jash
Diptasya Jash
Techie hailing from Bengal, working in Kolkata

Similar Articles

Comments

Scan to donate

Swadharma QR Code
Advertisment
Sirf News Facebook Page QR Code
Facebook page of Sirf News: Scan to like and follow

Most Popular

[prisna-google-website-translator]
%d bloggers like this: