13.7 C
New Delhi
Monday 20 January 2020

TMC councillor’s casteist slur

Translation in English at the bottom of the text in Bengali

বাংলা তৃণমূলের বর্ণবিদ্বেষ মেনে নেবে কি?

[dropcap]ম[/dropcap]হামান্য গোপালকৃষ্ণ গোখলে বলেছিলেন “বাংলা আজ যা ভাবে, বাকী ভারত তা কাল ভাবে।” এই উক্তির ভিত্তি ছিল স্বাধীনতার পূর্বে — যখন ব্রিটিশ আমলে বাংলা ছিল ভারতীয় রাজনীতি আর অর্থনীতির কেন্দ্রবিন্দু। কিন্তু স্বাধীনতার পরে বাংলার এই গরিমার অনেকটাই অধঃপতন ঘটেছে। বিগত ৭০ বছরে বাংলা রাজনীতি ও অর্থনীতি এই দুই ক্ষেত্রেই ক্রমশ পিছতে-পিছতে ভারতীয় রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু থেকে অনেকটাই সরে এসে বর্তমানে নেহাতই এক পার্শ্বচরিত্র যার গুরুত্ব কখন-সখন রাজ্যসভায় বিল পাশ করাতে, নাহলে বাকী ভারতকে সস্তার ঠিকা শ্রমিক সরবরাহ করতে।

স্বাধীনতার পূর্বে অনেকাংশে এবং স্বাধীনতার পরে পুরোপুরি ভাবে বাংলার রাজনীতি নিয়ন্ত্রিত হয়েছে তথাকথিত উচ্চবর্ণের মানুষদের হাতে। স্বাধীনতার পরে বাংলার প্রথম মুখ্যমন্ত্রী বিধান চন্দ্র রায় থেকে শুরু করে বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অব্দি সেই একই ধারা চলে আসছে। মাঝে বাম আমলেও সেই একই ধারা লক্ষ্য করা যায়। যেখানে রেজ্জাক মোল্লা বা বিনয় চৌধুরীরা রাজ্য রাজনীতির গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র হলেও মুখ্য চরিত্রে থাকেন জ্যোতি বসু বা বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যরাই।

12524110_588724464623310_3397947773527173036_nএই ক্ষেত্রে বামেদের চরিত্র তাদের আদর্শের সাথে কখনই খাপ খায়না। মুখে তারা যতই বলুন না কেন, শ্রেণীহীন সমাজের কথা তাদের নেতৃত্বে বরাবরই লক্ষ্য করা যায় উচ্চবর্ণের প্রতিনিধিদের প্রতিপত্তি। সে একই ধারা লক্ষ্য করা যাচ্ছে বর্তমান তৃণমূল সরকারের ক্ষেত্রেও। সেখানে কোন এক বেচারাম মান্না প্রয়োজনীয় হলেও গুরুত্বে অনেক এগিয়ে থাকেন তথাকথিত রায়-মুখার্জ্জীরাই।

বাঙ্গালী রাজনীতিতে উচ্চবর্ণের এই নিজেদের প্রধান ভাবার প্রবণতা বিভিন্ন ছোটখাট ঘটনাতেও লক্ষ্য করা যায়। এমনি এক ঘটনার সুত্রপাত বিগত শিবরাত্রির দিন। কিছু তথাকথিত বাম বিপ্লবীর বিপ্লবী সত্তা কোন হিন্দু উৎসব এলেই জেগে ওঠে ও হিন্দু দেবদেবীদের অবমাননার মধ্যে দিয়ে তারা নিজেদের ‘বিপ্লব’ প্রকাশ করে থাকেন। ঠিক তেমনি গত শিবরাত্রির দিন এক তথাকথিত বাম বুদ্ধীজীবি তার বৈপ্লবিক চিন্তাভাবনার প্রকাশ ঘটান শিবের মাথায় নিরোধক পড়িয়ে সুরক্ষিত যৌনতার প্রচার করে! এই কুচো বাম নেতাটি এই কাজের মাধ্যমে তার অজ্ঞানতার প্রকাশ ঘটান।

IMG_3159 (1)
Translation: ‘I wouldn’t know if life stays the same for someone always. But the Prophet’s brothers (Muslims) have always thrashed the children of Hanuman (Hindus) in places like Kamalgazi, and they will continue to do so. And then the Hindus complain (to me) over the phone. I can’t stand it. The world is a bad place. This is the plight of secular India.’

এমনিতে সহিষ্ণু বাঙ্গালী হিন্দু মধ্যবিত্ত সমাজ এসব ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া না দেখালেও এব্যাপারে প্রতিবাদ জানায় ফেসবুকে এবং এই প্রতিবাদের মাধ্যম স্বরূপ তারা সাইবার সেলে প্রতিবাদ জানান ও অন্য নানা আইনগত প্রক্রিয়ার সাহায্য নেন। এরই ফলশ্রুতিতে এই ঘটনাটি সর্বভারতীয় সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পরে এবং এই বাম নেতাটি প্রবল সমালোচনার মুখে পরে তার নিজের ফেসবুক আক্যাউন্টটি বন্ধ করতে বাধ্য হন। এমনকি এই ঘটনার ফলশ্রুতিতে গুজরাতেও এই ব্যক্তি অনির্বাণ মাইতির বিরুদ্ধে একটি এফ আই আর নথিবদ্ধ করা হয়।

ঘটনার এই পর্যায়ে আবির্ভাব হোল এক প্রাক্তন বাম যুব নেতা যিনি বর্তমানে তৃনমূল কংগ্রেস পরিচালিত কলকাতা পৌরসভার কাউন্সিলর অরূপ চক্রবর্তী। ফেসবুকে এই ঘটনা নিয়ে বাদানুবাদের মাঝে তিনি এক নিম্নবর্ণের ব্যক্তিকে তার জাত তুলে আক্রমন করেন এবং মন্তব্য করেন এইসব নিম্নবর্ণের ব্যক্তিরা একসময় তাদের পা ধুয়ে জল খেত আর এখন তার সাথে তর্ক করার সাহস দেখাচ্ছে। তিনি আরও মনে করিয়ে দেন যে তিনি তথাকথিত উচ্চবর্ণের হিন্দু তাই ঐ নিম্নবর্ণের ব্যক্তির অধিকার নেই তাকে হিন্দু ধর্ম নিয়ে জ্ঞান দেওয়ার। এই নিয়ে যদি হিন্দুত্ববাদীরা বেশী বাড়াবাড়ি করে তাহলে যে তার ফল ভাল হবেনা তা মনে করিয়ে দেওয়ার জন্য তিনি ঘুরিয়ে হুমকি দেন যে বেশী যদি এই ঘটনা নিয়ে ঘাটাঘাটি করা হয় তাহলে তার ক্ষমতা আছে মুসলিমদের মাধ্যমে এই সব তথাকথিত হিন্দুত্ববাদীদের মার খাওয়ানোর!

ঘটনা হিসাবে এটি খুবই সামান্য কিন্তু এই ঘটনা থেকেই বাঙ্গালী রাজনীতির এই উচ্চবর্ণের নেতাদের মানসিকতা ফুটে ওঠে। এনারা মনে করেন এইভাবেই এরা মুসলিম ও নিম্নবর্ণের হিন্দুদের লড়িয়ে দিয়ে তাদের রাজনীতি চালিয়ে যাবেন। সংসদে দাঁড়িয়ে কোন এক সুগত বোস সহিষ্ণুতা নিয়ে সারা ভারতকে জ্ঞান দেবেন কিন্তু রাজ্যে তার দলের লোকেরাই উচ্চবর্ণের ও নিম্নবর্ণের ফারাকটা খুব স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দেবেন এবং রাজ্য রাজনীতিতে দলমত নির্বিশেষে উচ্চবর্ণের নিয়ন্ত্রণ কায়েম করার চেষ্টা চালিয়ে যাবেন।

news analysis

Will Bengal Accept TMC’s Racism?

[dropcap]G[/dropcap]opal Krishna Gokhale had said, “What Bengal thinks today, India thinks tomorrow.” That was the situation much before independence. When in the British era Bengal was the intellectual hub of the nation and also the centre of Indian economic and political activities. After Independence, Bengal lost its relevance in Indian politics and economy rapidly. In the last 70 years after rapid degradation, Bengal is just an also-ran in Indian politics and economic scenario. Bengal’s importance is limited to its MPs helping in getting some Bills passed in the Rajya Sabha or in supplying cheap labour to the rest of the country.

Bengal’s political scenario before and after Independence has largely been controlled by the upper caste Hindus. From Bidhan Chandra Roy, the first chief minister, to the incumbent Mamata Banerjee — upper castes have occupied the highest posts in the State executive. Even the left that always advocates a classless society continued with the tradition. When it comes to selecting the chief minister, they will select some Basu or Bhattacharya who represent the upper caste. People like Rezzak Molla or Binoy Chowdhury will be important characters, but they will not be seen in the lead roles. If or when they criticise the leadership, they will expelled from the party or will be sidelined.

This nature of dominance of upper castes is very much evident even in small incidents. There are some so-called intellectuals in the left fold whose rebellion is now limited to demeaning Hindu gods and goddesses, especially on occasions of Hindu festivities. On the day of Shiv Ratri, Anirban Maity posted one such post on Facebook. He put a condom over the Shiva Lingam which, as per him, was a campaign for safe sex!

In all probability, this breed of intellectuals was so busy thinking about Cuba or China that they did not got the time to learn the real meaning of Shiva Lingam. To them, the lingam (phallus) represents a man’s sexual organ, not the third eye of Shiva. There are some leftist intellectuals who will keep posting such things on every Hindu occasion, but this time the difference was that the middle class Bengali Hindu did not take it lying down unlike in the instances when some communists claimed that a fair skinned Goddess Durga was a sex worker of the upper caste who had duped a lower-caste — do not miss the communist racism — dark-skinned Mahishasura.

On this occasion, the outraged Bengali Hindu started sending mails of complaint to the cyber cell of Kolkata Police, urging the law enforcement agency to take action against the cartoonist for affecting communal harmony in Bengal. As a result of this protest, the post went viral, spreading all over Bengal and beyond. An FIR was lodged against Anirban Maity in Gujarat.

IMG_3157 (1)
Translation: ‘I did not notice earlier that the surname of the billy is Dey. Ah, a low-caste guy! In the olden days, his forefathers would wash our feet. Now look at these cattle thieves! He is lecturing an aristocratic Brahmin like me on Hinduism. These buggers have now joined the knickers (the Sangh Parivar). This is why the BJP gets screwed here (Bengal).’

At this juncture, a former DYFI leader who is now a councillor of TMC in the Kolkata Municipal Corporation, Arup Chakrobarty, made an entry to save Maity from this public outrage. Over an argument on Facebook with a Dalit, Arup Chakrobarty reminded the person that Arup was a representative of the upper castes and that there used to be an era when “these people” drank water that had washed the feet of Arup’s forefathers! Chakraborty then reminded the Hindus who were protesting against Maity that he was capable of getting them people beaten up by his band of Muslim rogues.

The abusers in these incidents may be small-time leaders, but since they are all over the Bengal landscape, the sequence shows how upper caste Hindus in the guise of an ideology of the ‘classless’ are dividing the Dalits and Muslims of Bengal and thus maintaining their vice-like grip over the politics of Bengal. Some Sugata Bose will take help from goons like Arabul Islam and, after winning the election, preach Parliament about tolerance. On the other hand, his own party leaders will harm the communal harmony of Bengal by spreading venom against Hindus including Dalits. They make it very evident that they are the upper class — born to rule Bengal.

Avatar
Diptasya Jash
Techie hailing from Bengal, working in Kolkata

Stay on top - Get daily news in your email inbox

Sirf Views

Pandits: 30 Years Since Being Ripped Apart

Pandits say, and rightly so, that their return to Kashmir cannot be pushed without ensuring a homeland for the Islam-ravaged community for conservation of their culture

Fear-Mongering In The Times Of CAA

No one lived in this country with so much fear before,” asserted a friend while dealing with India's newly amended citizenship...

CAA: Never Let A Good Crisis Go To Waste

So said Winston Churchill, a lesson for sure for Prime Miniter Narendra Modi who will use the opposition's calumny over CAA to his advantage

Archbishop Of Bangalore Spreading Canards About CAA

The letter of Archbishop Peter Machado to Prime Minister Narendra Modi, published in The Indian Express, is ridden with factual inaccuracies

Sabarimala: Why Even 7 Judges Weren’t Deemed Enough

For an answer, the reader will have to go through a history of cases similar to the Sabarimala dispute heard in the Supreme Court

Related Stories

Leave a Reply

For fearless journalism

%d bloggers like this: